সিবিআই এর নিজাম প্যালেসে ডাক পড়লো বাঁকুড়ার ৭ শিক্ষক এর

0
50
CBI's Nizam Palace called Bankura teacher

তাহলে কী মুর্শিদাবাদের পর এইবার বাঁকুড়ার পালা ?

সিবিআই নিজাম প্যালেসে ডাক

 

সিবিআই সূত্রে খবর আগামী বুধবার মুর্শিদাবাদের চার জন এর পর বাঁকুড়া জেলার আরো ৭ শিক্ষিক কে ডেকে পাঠানো হয়েছে, এই খবর কানা কানি হতেই ঘুম উড়ে গিয়েছে ২০১৪ সালের প্রাথমিক টেট পাস করে চাকরি পাওয়া শিক্ষকমহলের।

কেননা ২০১৪ সালে বাঁকুড়া জেলা থেকে অনেকেই চাকরি পেয়েছেন অনেক অসৎ উপায় অবলম্বন করে, ঠিক তাদেরই এখন “ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি” অবস্থা।

সিবিআই সূত্রে খবর ২০১৪ সালের টেট নিয়ে যে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে তার ফল সরূপ গত সোমবার মুর্শিদাবাদের চার জন শিক্ষককে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠানো হয়েছে।

বিচারপতি অর্পণ চট্টোপাধ্যায় গত সোমবার আদালতে, সিবিআই তদন্তকারীরা যে নথি পেশ করেন, তাতে ওই চার শিক্ষকের নাম ছিল এবং নথিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে ওই চার শিক্ষক টাকা দিয়ে চাকরি কেনে এবং ঘুষের টাকা তাঁরা দেন তাপস মণ্ডলকে। এই প্রমান পাবার পরই বিচারপতি অর্পণ চট্টোপাধ্যায় ওই মুর্শিদাবাদের ৪ জন কে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেই। এই চার জন শিক্ষকই মুর্শিদাবাদের বাসিন্দা তাঁরা হলেন সায়গল হোসেন, জহিরুদ্দিন শেখ, সৌগত মণ্ডল এবং সিমার হোসেন। গ্রেফতারির আগে পর্যন্ত তাঁরা প্রত্যেকেই চাকরি করছিলেন বলে জানা গেছে।

অল বেঙ্গল টিচার্স ট্রেনিং অ্যাচিভার্স অ্যাসোসিয়েশন’-এর সভাপতি হয়েছিলেন তাপস মন্ডল যেটি ছিল একটি বেসরকারি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ সংগঠন। তদন্তকারী দলের ধারণা, এই বেসরকারি শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজ থেকেই সহজেই চাকরিপ্রার্থীদের খুঁজে টোপ ফেলতেন দালালেরা এবং লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে চলতো এই বেআইনি নিয়োগ প্রক্রিয়া।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here