চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস

0
63

চোখ-ওঠা-বা-pink-eye-কনজাঙ্কটিভাই

চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস এর মূল কারণই হলো সংক্রমণ, অ্যালার্জি ও পরিবেশের দূষণ সৃষ্টিকারী পদার্থগুলি।

যে উপসর্গগুলি চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস এর ক্ষেত্রে দেখা যায় সেগুলি হল:

  • চোখের পাতা ফুলে যাওয়া
  • চোখের সাদা অংশের ওপরের পাতলা স্বচ্ছ পর্দা ফুলে যাওয়া।
  • চোখ চুলকানো বা খচখচ করা কিংবা জল পড়া বা ব্যথা করা। চোখ ওঠার কারণে চোখ লাল হয়ে খচখচ করলে সেটা সাধারণত ছোঁয়াচে হয়.
  • চোখের মধ্যে কিছু ঢুকেছে এমন মনে হওয়া অথবা চোখ চুলকানো,
  • চোখ দিয়ে জল পড়া
  • চোখে মিউকাস জাতীয় তরল অথবা পুঁজ জমা। পুঁজ শুকিয়ে চটচটে হয়ে চোখের পাতা অথবা পাপড়ি সাময়িকভাবে জোড়া লেগে যেতে পারে। বিশেষ করে সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরে এমন হয়। এই লক্ষণ থাকলে চোখ ওঠা ছোঁয়াচে হয়.
  • কনট্যাক্ট লেন্স পড়লে অস্বস্তি হওয়া অথবা লেন্স চোখে ঠিকমতো না বসা.

চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস

ব্যাকটেরিয়া অথবা ভাইরাস ইনফেকশনের লক্ষণ কী কী :

সাধারণত ব্যাকটেরিয়া অথবা ভাইরাস জাতীয় জীবাণু দিয়ে ইনফেকশন হলেও  চোখ ওঠে। এর মধ্যে কিছু ব্যাকটেরিয়া অথবা ভাইরাস একজন থেকে আরেকজনের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। এমন ইনফেকশনের কারণে চোখ উঠলে সেটি সাধারণত খুব ছোঁয়াচে হয় এবং আপনাদের খুব সাবধানতা অবলম্বন করা উচিৎ।এই ক্ষেত্রে সর্দি কাশি অথবা জ্বর ও আস্তে পারে। প্রথমত একটি চোখে এর প্রতিক্রিয়া ধরা পরে আস্তে আস্তে ওপর চোখ টিও এই ব্যাকটেরিয়া অথবা ভাইরাস জাতীয় জীবাণুর আক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে।

 

চোখ উঠলে বা কনজাঙ্কটিভাইটিস হলে কী করবেন :

আপনি অথবা আপনার শিশু খুব অসুস্থ বোধ করলে স্কুলে কিংবা অফিস যাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত। কেননা সুস্থ ব্যক্তির নিকট সংস্পর্শে আসার সম্ভাবনা থাকলে এই ইনফেকশন এর প্রকোপে খুব সাধারণ ভাবেই ছড়িয়ে পড়ে।

 

চোখ ওঠা বা কনজাঙ্কটিভাইটিস এর  চিকিৎসা:-সাধারণ চোখ ওঠা হলে ডাক্তার দেখানোর প্রয়োজন হয় না, কোনো চিকিৎসা ছাড়াই কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নিজে নিজেই সেরে ওঠে কিন্তু যদি জ্বর সর্দি অথবা কাশি থাকে তাহলে অতি অবশ্যই ডক্টরের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন।

চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস

সাধারণ চোখ ওঠা কী করবেন :- সাধারণ চোখ ওঠা হলে ডাক্তার দেখানোর প্রয়োজন হয় না, কোনো চিকিৎসা ছাড়াই কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নিজে নিজেই সেরে ওঠে।

  • এছাড়া সংক্রমিত চোখ বেশি না ছোঁয়া।
  • বার বার হাত ভালো করে ধোওয়া দরকার।
  • নিজের তোয়ালা ও ব্যবহৃত দ্রব্য অন্য কাউকে ব্যবহার করতে না দেওয়া।
  • চোখ পরিষ্কার করার জন্য জল ফুটিয়ে জীবাণুমুক্ত করে ঠান্ডা করে নিন। এবার এক টুকরো পরিষ্কার সুতির কাপড় সেই জলে ভিজিয়ে নিয়ে চোখ সাবধানে পরিষ্কার করা।
  • আপনি যদি কনট্যাক্ট লেন্স ব্যবহার করন তাহলে এই সময় তা ব্যবহার করবেন না।

চোখ ওঠা বা (Pink eye) কনজাঙ্কটিভাইটিস

বেস্ট ওপিনিয়ন :-

যদি আপনি বা আপনার শিশুর চোখের সংক্রমন খুব বেশি মনে হয় তাহলে বেশি দেরি না করে যত তাড়া তাড়ি সম্ভব ডক্টরের পরামর্শ নিন।

। কেননা চোখ আমাদের এক অমূল্য সম্পদ তাই চোখের যত্ন নিন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here